যখন সোস্যালমিডিয়া ছিলনা, আমাদের মত আবালেরা দুম করে সমালোচোক হয়নি, তখনও দেশপ্রেম ছিল। তখনও শত্রু দেশের সাথে ভারতের সেনারা যুদ্ধে জয়লাভ করতো। আজও করে জয়লাভ। ইনসাল্লাহ আগামীতেয় অজেয় থাকবে আমাদের সেনারা।

মজার কথা হল তখন মর্কট নাচ ছিল মাদারির খেলা, আজ কাল সেটাকে ক্ষমতাশীন জাতীয় রাজনিতী নাম দিয়েছে, আমাদেরই ৫০ কোটি(!) ফেকু ভক্ত।

বাঁদর কে মাথায় তুলতে নেই, এটা প্রবাদ বাক্য। গুরুর কথা শুনবি না কানে, দু:খ পাবি নানা স্থানে। প্রশঙ্গত এটা আফজাল গুরু নন, গুরুজন।

বাব্বা, এটা না বলে দিলে, মা শীতলা দেশপ্রেম ভান্ডারের কর্মচারিরা আবার রে রে করে কামরাকামরি খামচাখামচি শুরু করবে। অবশ্যই নিষ্ফলা।

তাই ভোগো এখনো ২ বছর। পেটে ছেলে নেই যার, তার কোলে ছেলে করে দেবে। দেশে একটাই সংগঠনের কাছে দেশভক্তির টেন্ডার আছে। মোনোপলি ব্যাবসা আর কি। জানে কিছু তো করতে পারলাম না। খুঁচিয়ে ঘাঁ টা তো অন্তত করি।

এতো বড় দেশ, ছাগল পাগল আর বেকারের কোন অভাব নেই দেশে, আগামীতেও থাকবে না।

তবে আমার বাড়ির গুরুজনেরা শত্রু পড়সির নাতনির বিয়েতে পাত পাড়তে শেখায় নি।

অবশ্য মোল্লা মসজিদে পাঁদলে দোষ নেই।

Leave A Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *