লকডাউনের ইভেন্ট

সমগ্র বিশ্ব আজ করোনা ত্রাস, SARS-CoV2 জীবাণুর আক্রমণে বন্দি। থেমে গেছে সভ্যতার চাকা, বিশ্বের ১৯৯টি দেশের মানুষ আজ গৃহবন্দী নিজেকে বাঁচাতে, মানব সভ্যতাকে বাঁচাতে। সমস্ত চাকা থেমে গেছে, থেকে গেছে হানাহানি, থেমে গেছে যুদ্ধ, খুন। এ এক অলীক লড়াই, সমস্ত ব্যস্ততা, কাজ কর্ম, দৌড়াদৌড়ি স্তব্ধ হয়ে গেছে এক লহমায়। অকপট কুর্নিশ জানায় সকল স্বাস্থ্যকর্মী, ডাক্তার ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য পরিসেবার মানুষদের যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমাদের ঘরে বসে থাকাটাকে খাদ্য, বিদ্যুৎ, জল, মনোরঞ্জন, ইত্যাদির যোগান দিয়ে যাচ্ছেন নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে।

নগর সভ্যতার দুরন্ত ঘুর্নিতে পরিবারের জন্য সময় বের করাটাই হয়ে গিয়েছিল এক কঠিন গণনার বিষয়। আজ আমরা এই ভয়াবহ অবস্থার মুখোমুখি দাড়িয়েও এই আশির্বাদটাকে সাদরে স্বীকার করে নিতে কোনো বাঁধা নেই- আমাদের হাতে অঢেল সময় আজ। প্রকৃতিও অনেকটা হাফ ছেড়ে বেঁচেছে এই মহামারীর সৌজন্যে, বিশ্বজোড়া দূষণের মাত্রা ব্যাপক মাত্রায় কমেছে। শ্বাস নিচ্ছে পৃথিবী, শ্বাস নিচ্ছে প্রকৃতির আরো অন্যান্য জীবজন্তু, শ্বাস নিচ্ছি আমরাও।

বিশ্বজুড়েই রাষ্ট্রনেতারা তাদের নাগরিকদের নানানভাবে সুযোগসুবিধা দেবার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, আমাদের কর্ম শুধুই খাওয়া দাওয়া করা ও গৃহবন্দী হয়ে থেকে এই অদৃশ্য শত্রুর হাত থেকে সভ্যতাকে তথা  মানবজাতিকে বাঁচিয়ে নেওয়া। লকডাউন মানে গৃহবন্দী নয়, গৃহশান্তি। স্ত্রী, সন্তান, পিতামাতার সাথে কতদিন পর এমন পিকনিক পিকনিক আবহ এসেছে, এটাকে ভরপুর চুটিয়ে উপভোগ করুন।

আজ বিপদ এসেছে, কাল কেটে যাবে। পরশু আবার সেই কর্মে ফেরা, ব্যাস্ততার জীবনে ফেরা। তাই যদি পারেন আজকের দিনের এই অভিজ্ঞতাগুলো, যেগুলো অনুভব করছেন, চোখে দেখছেন, কানে শুনছেন বা কোনো ইনোভেটিভ ভাবনা মাথায় এসেছে সেটাকে নামিয়ে দিন ঝটাপট অকপটে। কমিউনিটি স্প্রেডিং রোধ করতে বস্তুগত দুরত্ব যতই থাকুক, মনকে কাছাকাছি আনতে তো আর দোষ নেই।

আজকের এই ট্যেকস্যাভি যুগে ঘরে বসে থেকে যদি বোর ফিল করেন, আপনি অকপটে আপনার ভাবনাদের শেয়ার করে ফেলুন ফটাফট। সেলফি, গল্প, কবিতা, বা নিতান্তই আড্ডার পোষ্ট করুন গান সিনেমা ছবি নিয়ে। মনোজ্ঞ আলাপচারিতাতে অকপট সমৃদ্ধ হোক।

#লকডাউনের_অভজ্ঞতা_সেলফিতে ট্যাগ সহ।

তাহলে আর দেরি কিসের! শুরু করে দিন।

Leave A Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *