প্রজাতন্ত্র!

আমাদের সংসদীয় ব্যবস্থায় জনগণ, শুধুমাত্র নির্বাচন প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহনের নামেই ‘গণতন্ত্র’ নামের সোনার পাথরবাটির অংশীদার, এখানে প্রতিটি নির্বাচনই সংগঠিত হয় পেশাদার রাজনীতিবিদদের দ্বারা, যাদের পৃষ্ঠপোষক পুঁজিবাদী বনিক শ্রেনী।

স্বভাবতই শ্রমিক ও কৃষক সম্প্রদায় কুৎসিতভাবে তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়- তাদেরই দ্বারা নির্বাচিত সরকারের উদাসীন্য ও অত্যাচারে। জন্ম হয় মধ্যসত্ত্বভোগী একটা দালাল সম্প্রদায়ের, যারা চাটুকারিতা আর দুর্বৃত্তায়নের মাধ্যমে দৈনপীড়িত জনগোষ্ঠীর রসদ ও অধিকারে থাবা বসায়। অভাবের তাড়নাতে ন্যয্য পাওনার দাবী ভুলে ভিক্ষাবৃত্তিতে মেতে উঠে সেই জনগণ।

সরকার সাধারণ মানুষের ভোটে ক্ষমতাতে এলেও, পুঁজির প্রতি কৃতজ্ঞতা ভোলেনা। জনগণ পুনরায় ক্ষমতা দিতেও পারে আবার প্রত্যাখ্যানও করতে পারে; পুজিকে অবহেলা করলে সে চরম প্রতিশোধ নেয় রাজনীতিবিদদের উপরে।

এই সর্বনাশা গণতন্ত্র কবে সত্যিকারের ‘প্রজাতন্ত্র’ হবে আমাদের দেশে, যেখানে প্রান্তিক মানুষটা রাষ্ট্রীয় বঞ্চনার শিকার হবেনা?

Leave A Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *